Welcome, Guest
You have to register before you can post on our site.

Username
  

Password
  





Search Forums

(Advanced Search)

Forum Statistics
» Members: 8,133
» Latest member: keesur
» Forum threads: 4,342
» Forum posts: 190,479

Full Statistics

Online Users
There are currently 1367 online users.
» 93 Member(s) | 1271 Guest(s)
Alexa Internet, Bing, Google, akak, AllTimeColdHeart, amardeepravish, apple, avk7871, Axnyamini, Babu424342, Bhavnasexyy, bole, boredhorny_engineer, Bubbly, bunty9018, chinna6143, Chinnanani, Chudairaja, Craze1233, Cutie, DARKNIGHT77, Dipu603@, Divya, ErotikSlutWife, Guggu, Hornywife, hotstories, iqube, jagath365, Jeev_89, jhula, jmzsoni, Johnpaul, Kannaiya, keesur, Ketapayen, key0878, KK_143, krishna30, Kumar541, kutua, looking4fun1984, Manik, Manu, Mastan000, mcdonald, MiniAunty, mnaughty1, MrM, Munna97, Naani., nabhipremi, nirmagtr, octopussyjk, omes, pula_rangadu1972, PunjabiMunda, Ragavan 2.O, rajeevpadma, Raju, Renjith, roaming79, rock_the_ripper, RoughGuy, Rupinder, samss400, sandy001, sasigp, Shekhar908, showstopernew, shruti23, sismafire, siva_reddy32, SKY08090, Sridhar1041, sri_sri, Subhash5233, Super Pics, Sweety1990, Tamilking, Tanmoy, twinciteeguy, Xafar_BD, zodiac69, ^^GoRiLLaZ^^, চটিবাজ

Latest Threads
actress collection
Forum: Pics n Vids (glamour)
Last Post: Ragavan 2.O
Less than 1 minute ago
» Replies: 2,089
» Views: 286,241
DUSKY SOUTH BEAUTY EASWAR...
Forum: Pics n Vids (glamour)
Last Post: jhula
1 minute ago
» Replies: 16
» Views: 54
స్నేహం హద్దు మీరితే (in c...
Forum: Telugu Stories
Last Post: twinciteeguy
1 minute ago
» Replies: 252
» Views: 131,428
Teen ; Pornstars ; Deflor...
Forum: Videos (Adult)
Last Post: ^^GoRiLLaZ^^
2 minutes ago
» Replies: 223
» Views: 13,769
My Sexy Wife
Forum: Pictures (Adult)
Last Post: twinciteeguy
3 minutes ago
» Replies: 281
» Views: 63,998
ஆசைப் படு அனுபவித்து விடு...
Forum: Tamil Stories
Last Post: Renjith
4 minutes ago
» Replies: 95
» Views: 29,477
ENJOYMYHORNYWIFE ?
Forum: Pictures (Adult)
Last Post: DARKNIGHT77
5 minutes ago
» Replies: 148
» Views: 32,128
HAVE TO SHAG BEFORE I SLE...
Forum: No Holds Barred
Last Post: Ketapayen
7 minutes ago
» Replies: 22
» Views: 1,042
தமிழ் இன்சாட்
Forum: Chatting
Last Post: Ketapayen
7 minutes ago
» Replies: 8
» Views: 331
Newest HD Amateur Homemad...
Forum: Videos (Adult)
Last Post: চটিবাজ
9 minutes ago
» Replies: 44
» Views: 21,878

 
  DUSKY SOUTH BEAUTY EASWARI RAO
Posted by: jhula - 11 minutes ago - Forum: Pics n Vids (glamour) - Replies (16)

[Image: easwarirao-aravindasametha-sm7.jpg]

Print this item

Thumbs Up kanji collections gifs pics of sluts
Posted by: Ketapayen - 43 minutes ago - Forum: Pics n Vids (glamour) - Replies (6)

hi this will be my personal collections 
enjoy and cum a lot

Print this item

Heart Indian moms and bhabhis of my taste
Posted by: BASUnSUBA - 1 hour ago - Forum: Pictures (Adult) - No Replies

I don't own any pics all are from internet

Print this item

  অসতী
Posted by: অনঙ্গপাল - 1 hour ago - Forum: Bengali - Replies (1)

অসতী

(পূর্বতন ক্সসিপের রিজিওনাল স্টোরি কনটেস্ট ২০১৭-য় প্রকাশিত।)



কুক্-কু... কুক্-কু... কুক্-কু।

জার্মান ব্ল্যাকফরেস্ট ঘড়ির ভিতর থেকে ভেসে আসা যন্ত্রপাখির কলতান মিশে যাচ্ছে শীতাতপনিয়ন্ত্রিত ঘরের আনাচে-কানাচে। মিষ্টি সুরেলা আওয়াজে নিশিযাম ঘোষণা।

অর্থাৎ সময় এখন কাঁটায় কাঁটায় ঠিক রাত বারোটা।

আশ্বিন পেরিয়ে কার্তিকে ঢলতে চলল, বাতাসে কালীপুজোর পোড়া বারুদের ঘ্রাণ এখনও আবছাভাবে লেগে। এরইমধ্যে উত্তুরে হাওয়ার দাপট বেড়েছে খুব। হিমেল স্পর্শ থেকে আত্মরক্ষার তাগিদে কাশ্মীরী আলোয়ানটা আরেকটু ঘনিষ্ঠভাবে জড়িয়ে নেবার মাঝে সোফায় এসে বসলাম। পাশেই পতিদেবতা জবুথবু হয়ে অধিষ্ঠিত, মনোযোগী দৃষ্টি একটানা সেঁটে আছে টেলিভিশনের পর্দায়। যুবতী বউ ইঞ্চিকয়েক দূরত্বে বসে ওম বিলোচ্ছে, সেদিকে ভ্রূক্ষেপই নেই। কি যে এত দেখে হাঁ করে!

দৈত্যাকৃতি পর্দার নীলচে ঔজ্জ্বল্যে ভেসে ওঠা আলোকস্নাত টেনিস-কোর্ট। নেটের দু'পারে দুই যুযুধান প্রতিদ্বন্দ্বী, তাদের র*্যাকেটের আঘাতে পুঁচকে টেনিস বল যাতায়াত করছে ময়দানের এপ্রান্ত থেকে ওপ্রান্তে। ময়দান তো নয়, যেন রণক্ষেত্র! কিংবা রোমান কলোসিয়ামের বধ্যভূমি। তফাত শুধু একটাই। রড লেভার অ্যারিনা ঘিরে বসে থাকা হাজার কুড়ি দর্শক এই মহাকাব্যিক দ্বৈরথের সামনে বাকরুদ্ধ। ইতিউতি অস্ফুট কিছু বিস্ময়সূচক প্রশস্তি বাদে কারওর মুখে কোনও শব্দ নেই।

স্তব্ধ আমিও, মুগ্ধ চোখে নিরীক্ষণ করে চলেছি পৌরুষের উদযাপন। চিতার মত ক্ষিপ্র গতির সাথে সিংহের অমিত শক্তির মিশেল। শরীরময় পেশীর আস্ফালন আর জান্তব হুংকার। কঠিন পুরুষালি দেহের প্রতিটি রেখা বেয়ে চুঁইয়ে পড়তে থাকা অজস্র স্বেদবিন্দু। বুকে নেশা ধরিয়ে দেয়!

নিরন্তর যুদ্ধের পর একজনের সাময়িক জয়। একটা গেম শেষ হল। দর্শকমণ্ডলীর স্বতস্ফূর্ত অভিবাদনের মাঝেই অন্তিম লড়াইয়ের প্রস্তুতি।

হায় ভগবান, এ যে দেখি রিপিট টেলিকাস্ট! ২০০৯ অস্ট্রেলিয়ান ওপেন সেমিফাইনাল। এটাই আমার স্বামীরত্নটি এতক্ষণ হাঁ করে গিলছিল!

রেগে উঠতে গিয়েও পারি না। বিস্ফারিত দৃষ্টি আটকে গেছে টিভির পর্দায়, সেখানে এখন আট বছর আগেকার স্কোরলাইন দেখাচ্ছে। ৬-৭, ৬-৪, ৭-৬, ৬-৭, ৫-৪। রাফায়েল নাদাল ভার্সেস ফার্নান্দো ভার্দেস্কো।

হৃদ্স্পন্দন একমুহূর্তের জন্য থেমে গেল কি? গালদু'টো অকারণেই লাল হয়ে উঠছে যেন, কানের ভিতর গরম হল্কার আভাস...

জানি, প্রলাপ বকছি। কি করি, নামগুলো দেখার পরে দেহমন আর নিজের বশে থাকছে কই?

তার চেয়ে বরং গল্পটা একদম গোড়া থেকে আরম্ভ করি।

...

আমি যাজ্ঞসেনী।

যাজ্ঞসেনী চ্যাটার্জি। ৩২, এক সন্তানের মা। কলকাতার খ্যাতনামা এক ব্যবসায়ী পরিবারে আমার বিয়ে হয় আট বছর আগে। অতুল বিত্তবৈভবের অধিকারিণী হওয়া সত্ত্বেও বহুজাতিক সংস্থার উচ্চপদে কর্মরতা। নিতান্ত সাধারণ মধ্যবিত্ত বাড়ির মেয়ে হয়ে আজ এই জায়গায় পৌঁছতে পেরেছি শুধুমাত্র রূপ আর মেধার জোরে। আজ্ঞে হ্যাঁ, আমার রূপ আগুনের মত, মহাভারতে যজ্ঞের অগ্নিকুণ্ড থেকে উঠে আসা দ্রৌপদীর যেমনটি ছিল। তার মতই শ্যামবর্ণা আমি, তারই মত স্বাধীনচেতা। সারাজীবনে সৌন্দর্যের ছটায় পুড়িয়ে ছারখার করেছি অনেক রথীমহারথীর হৃদয়। আজও আমায় দেখে ঈর্ষান্বিত হয় সদ্যফোটা নবযৌবনারা। সেদিক থেকে আমি সার্থকনামা।

কিন্তু দ্রৌপদীর ছিল পাঁচ স্বামী। আর আমি... একজনের গরবেই গরবিনী।

উদ্দালক, আমার বর, প্রথম আমায় দেখে ডোভারলেন সঙ্গীতসম্মেলনে। একবারের দর্শনেই সে শরাহত হয়েছিল। বন্ধুবান্ধব মারফত ফোননাম্বার আর ঠিকানা জোগাড় করতে বিশেষ বেগ পেতে হয়নি, বাকি কাজটা সারার দায়িত্ব নেয় ওর মা। আমার বাড়িতে, বলাই বাহুল্য হাতে চাঁদ পেয়েছিল। আমি অবশ্য আবেগে ভেসে যাইনি, বিয়ের আগে উদ্দালকের সাথে একান্তে দেখা করে বুঝে নিয়েছিলাম নিজের ভবিষ্যৎ পাওনাগণ্ডা। অভিজ্ঞ দোকানীর মত দাঁড়িপাল্লায় সবদিক তৌল করে তবেই রাজি হই। আমার দাবী ছিল অতি সামান্য, কোনওভাবেই আমার স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করা যাবে না। স্বভাবে নরমপ্রকৃতির উদ্দালক বিনাবাক্যব্যয়ে তা মেনেও নিয়েছিল।

আমাদের বিবাহিতজীবন সুখের বলা চলে। দৃঢ়চেতা হলেও স্বেচ্ছাচারী নই আমি, নিজের নীড় হেলায় ভেঙে ফেলব এতটা বোকাও না। তাই বিয়ের পর সযত্নে উপেক্ষা করে গিয়েছি অগুনতি প্রলোভনের হাতছানি। বাইরে যতই আধুনিকা সাজি, ভিতর ভিতর সনাতন ভারতীয় নারী। উদ্দালকও আমার প্রতি একনিষ্ঠ। প্রেম? জানি না আমাদের মধ্যে আছে কিনা, যেটা নিশ্চিতভাবে আছে তা হল বোঝাপড়া।

দু'জনের বোঝাপড়া অটুট ছিল রাতের অন্ধকারে দাম্পত্যশয্যার নিভৃত ঘেরাটোপেও। ছিল, ততদিন... যতদিন আমি একঘেয়ে গতানুগতিকতায় হাঁফিয়ে না উঠেছি। হঠাৎই নিজের যৌবনবেলার কোনও এক সন্ধিক্ষণে আবিষ্কার করলাম, আর পারছি না আগের মত বেজে উঠতে। এমনকি অভিনয় করেও নয়। সে নীরব বার্তা ওর কাছে পৌঁছেছিল নিশ্চয়ই। অতএব স্বাদবদলের জন্য তড়িঘড়ি আয়োজন হল ফরেনট্রিপের। পরপর। হাওয়াই, মরিশাস, নিউজিল্যাণ্ড। মাসছয়েকের মধ্যে ট্রলিব্যাগের চাকায় জমল তিন মহাদেশের ধুলো।

কিন্তু দাম্পত্যের অন্দরমহলে জমে থাকা বরফ সে উষ্ণতায় গলল কই? অচেনা পরিবেশে, মহার্ঘ্য হোটেলরুমে অভ্যস্ত মৈথুনের যান্ত্রিকতায় সম্পর্কের শৈত্য বুঝি বেড়ে গেল কয়েকগুণ।

শীতঘুম ভেঙে উঠে দেখি উদ্দালক আর আমার মাঝে দুর্লঙ্ঘ্য দূরত্ব। কারোরই সাধ্য নেই একার চেষ্টায় অতিক্রম করি। হয়তো ইচ্ছেও নেই। ও ডুবে গেল নিজের কাজের ব্যস্ততায়।

অতৃপ্ত শরীর-মন নিয়ে একা অপেক্ষায় থাকি, কবে জ্বলে উঠবে দাবানল।

জানতাম না নিয়তি আমায় দেখে মুচকি হাসছে।

জানতাম না সেই প্রহর এত কাছে!

মার্চের গোড়ায় হঠাৎ একদিন অফিসে বসের জোর তলব। গিয়ে শুনি পরদিন লিসবনে গুরুত্বপূর্ণ কনফারেন্স, এদিকে কানপুরে তাঁর শাশুড়ি অন্তিমশয্যায়, না গেলেই নয়। অন্যান্য অধস্তনেরা ইয়ারএণ্ডিংয়ের আগে বিভিন্ন প্রজেক্টে হিমশিম, ভরসা করার মত নাকি একমাত্র এই যাজ্ঞসেনী।

যুদ্ধকালীন তৎপরতায় টিকিট, হোটেল-বুকিংয়ের ঝামেলা সামলে বাড়ি ফিরেই বসতে হল আনকোরা প্রেজেন্টেশন নিয়ে। সে পর্ব মিটতে ব্যাগ গোছানোর তাড়া। কাকডাকা ভোরে উঠে ঝড়ের গতিতে সবকিছু সেরে দীর্ঘ বিমানযাত্রা শেষে পর্তুগালের মাটিতে পা রাখছি যখন, আমার চোখের নিচে ক্লান্তির গাঢ় ছায়া।

এরপর দু'টো দিন কেটে গেল ব্যস্ততা আর আলস্যে হাতধরাধরি করে। প্রেজেন্টেশন শেষে অনেক তারিফ আর বাহবা কুড়োলাম, সেটা পেশাগত দক্ষতার কারণে নাকি অর্ধস্বচ্ছ শাড়ি পরিহিত আমার ফুটে ওঠা শরীরীরেখাদের জন্য- ভাবার মত মানসিক শক্তি অবশিষ্ট ছিল না। কনফারেন্স শেষ হতে বেশ কিছুটা বাকি থাকলেও সোজা চলে গেলাম নিজের স্যুইটে, কোনওরকম ফর্ম্যালিটির তোয়াক্কা না করে। সুন্দরীরা এটুকু ছাড় আশা করতেই পারে! 

প্রচন্ড ঘুম পাচ্ছে, যেন কতকাল ঘুমোইনি।

একবার বিছানার নরম আশ্রয়ে নিজেকে ছেড়ে দিতেই রাজ্যের শ্রান্তি ভিড় করে এল চোখের পাতায়।

চোখ খুলতে দেওয়ালঘড়ি জানান দিল সাতটা বাজে। প্রায় ঘণ্টাতিনেক টানা ঘুমিয়েছি, শরীর এখন অনেকটাই ঝরঝরে। তাও চুপচাপ শুয়ে রইলাম খানিকক্ষণ। মস্তিষ্কের কোষগুলোতে চুঁইয়ে পড়ছে অবসাদ। কাল বিকেলে ফেরার ফ্লাইট, কি করব এতটা সময়? ভাবতেই হাসি পেয়ে গেল। এইমুহূর্তে বাড়িতে থাকলে কোন রাজকার্যটা করতাম? সেই তো একঘেয়ে দিনগত পাপক্ষয়। উদ্দালকও আজকাল অনেক রাত করে ফেরে, প্রতিযোগিতার বাজারে ব্যবসায় চাপ বাড়ছে। দু'জনের কতটুকুই বা কথা হয় সারাদিনে? শেষবার মিলিত হয়েছি বেড়াতে গিয়ে, দেশে ফেরার পর থেকে আর তো...

তবে কি বুড়ি হয়ে যাচ্ছি? মাত্র বত্রিশেই শুকিয়ে গেলাম আমি? 

কি একটা ঘোরের মধ্যে উঠে দাঁড়িয়েছি। সামনেই মানুষপ্রমাণ আয়না। একটানে সরালাম নাইটির আড়াল, খুঁটিয়েখুঁটিয়ে দেখছি নিজেকে। উঁহু! মেঘের মত একঢাল চুল লুটিয়ে পড়েছে পিঠ ছাপিয়ে, তাদের আবরণের নীচে স্পষ্ট বোঝা যায় সুডৌল নিতম্বের আকর্ষণীয় গড়ন। অহংকারী গ্রীবার ত্বক এখনও টানটান। পাকা বেলের মত উদ্ধত স্তনজোড়া লেগে আছে দেহকাণ্ডের সাথে, মাধ্যাকর্ষণের বিরুদ্ধে যুদ্ধে অদ্যাবধি অপরাজিত। নিভাঁজ মসৃণ নাভির গভীরতায় নিয়মিত যোগব্যয়ামের স্বাক্ষর। ইঞ্চিকয়েক নীচে ঘনকুঞ্চিত চাদরে মোড়া ত্রিভুজ যেকোনও পুরুষের মনে আজও ঝড় তুলতে পারে। গোটা শরীরে যৌবন উপচে পড়ছে কানায় কানায়। এমন স্বর্গীয় নারীদেহ কি বিফলে যাবে?

কয়েকটা মুহূর্ত। মনস্থির করে ফেললাম। নিজেকে, নিজের শরীরের চাহিদাকে অবহেলা করেছি দিনের পর দিন। আর নয়। এবার এই প্রতীক্ষার অবসানের পালা। কি এমন লোকসান হবে বিদেশবিভুঁইতে এক রাতের জন্য একটু লাগামছাড়া হলে? আজকের রাতে বাকি সব পরিচয় থাক শিকেয় তোলা। আজ আমি কারও স্ত্রী, কারও মা, কারও মেয়ে নই।

আজ রাতে আমি শুধুই এক তৃষ্ণার্ত নারী।

অসতী নারী।

নিষিদ্ধ অভিসারের স্বপ্নে মশগুল হয়ে স্যুটকেস খুললাম। দু'দিনের ট্যুরের কথা ভেবে বেশি কিছু আনিনি, শুধু শাড়ি, জিন্স আর টপ। দ্যুৎ এইবেশে কি যাওয়া যায়? ঠোঁটকামড়ে ভাবতে ভাবতেই মনে পড়ল হোটেলের কাছে একটা প্রকাণ্ড মল! তড়িঘড়ি গায়ে কিছু একটা চাপিয়ে বেরিয়ে পড়েছি। এইরাত বাঁধভাঙার রাত। অভিসারিকার প্রস্তুতিও তেমনটি হওয়া চাই।

ঝটিকাসফর সেরে ফিরছি যখন, ঘড়িতে রাত আটটা। আসার পথে নজরে এল হোটেললাগোয়া সুইমিংপুলে উদ্দাম রাতপার্টির আসর বসেছে। আজ শুক্রবার, উইকেণ্ডের শুরু। চমৎকার! পদস্খলনের জন্যে আদর্শ।

শাওয়ারের উষ্ণ বারিধারার নীচে শরীর মেলে ধরলাম, আঃ কি শান্তি! ধুয়ে যাক সব মালিন্য, সব গ্লানি। জন্ম নিক এক নতুন আমি। জায়মান সে নারী যেন অকপটে উন্মোচিত হতে পারে অচেনা পুরুষের ক্ষুধার্ত দৃষ্টির সামনে।

স্নানসমাপনান্তে আভরিত করার পালা নিজেকে। একে একে নির্লজ্জার অঙ্গে উঠছে লেসদেওয়া নেটের কালো প্যাণ্টি, ব্রা, স্যাটিনের সমুদ্রনীল নুডলস্ট্র্যাপড মিনিস্কার্ট। ওমা! ড্রেসটা এত ছোট যে পুরুষ্টু থাইগুলোর প্রায় কিছুই ঢাকা পড়ছে না! শরীরের জ্যামিতির সাথে চেপে বসেছে আষ্ঠেপৃষ্ঠে। হঠাৎ দুষ্টুবুদ্ধি চাপল, নিমেষে খুলে ফেলেছি বক্ষবন্ধনী। আঁটো পোষাকের ছোঁয়ায় বুকের গোলাপকাঁটারা জাগছে অল্প-অল্প। পিঠকাটা ড্রেসের দাক্ষিণ্যে ব্রায়ের অভাব দৃশ্যতই পরিস্ফুট। বাড়াবাড়ি হয়ে গেল? হয়তো তাই, এখন আর কে পরোয়া করে? প্রসাধনে মন দিলাম। আজকের শৃঙ্গার দ্রৌপদীর নয়, উর্বশীর। মেকআপের তুলিতে আরও জীবন্ত হচ্ছে চোখের পাতা, চোখের কোল। ব্লাশের স্পর্শে গালে কৃত্রিম লজ্জারুণ আভা। কানে মানানসই ইয়াররিং। গাঢ় ওষ্ঠরাগে মাদক ঠোঁটদু'টো আরেকটু রাঙিয়ে উঠল। বিদেশী সুরভি ছড়াচ্ছি গ্রীবায়, বাহুমূলে, বুকের সুগভীর খাঁজে। সমস্যায় পড়লাম চুল নিয়ে, এই জলপ্রপাত কিভাবে সামলাই? অনেকে ভেবেচিন্তে সাইডবানে অবাধ্য কেশরাশিদের শাসন করে আয়নার সামনে দাঁড়াতেই অঙ্গে মৃদু শিহরণ। একটু ভারী গড়ন আমার, এই সাজপোষাকে মানাবে কিনা তা নিয়ে সামান্য দ্বিধা লেগে ছিল মনের কোণে। সংশয় একমুহূর্তে উধাও। 

দর্পণে প্রতিবিম্বিত ঐ রূপসীর কামনার আগুন জ্বালিয়ে খাক করতে পারে যে কোনও পুরুষকে।

নিজের মধ্যে এখনও এতটা রহস্য অবশিষ্ট?

আসন্ন মিলনরজনীর উত্তেজনায় থরথরিয়ে উঠি। যেমনটি কেঁপেছিলাম কিশোরীবেলার প্রথম চুম্বনের আনন্দে।

স্টিলেটোর সশব্দ পদক্ষেপে গর্বোদ্ধতা হরিণীর মত নেমে এলাম। সামনের দিকটায় বেশ ভিড়। একটু যেতেই দেখি বাঁধভাঙা তারুণ্যের জোয়ার আছড়ে পড়ছে ডিস্কোথেক-অভিমুখে। মন্দ কি! ডান্সফ্লোরের মত অ্যাফ্রোডেসিয়াক নাকি হয় না। একসময় নাচটা ভালই রপ্ত ছিল, চেষ্টা করলে এখনও পারি সুরের ছন্দে শরীর দোলাতে।

আগুপিছু না ভেবে মিশে গেলাম ভিড়ের মধ্যে। আধোঅন্ধকারে স্প্যানিশ মিউজিকের তালে দুলছে কোমর, সেইসঙ্গে অনুভব করছি অচেনা হাতেরা মৃদুভাবে ছুঁয়ে যাচ্ছে দেহের গোপন অববাহিকাদের। অসতীত্বের প্রথম ধাপ? ক্ষতি নেই। আরেকটু অসংকোচে, আরও খোলামেলাভাবে তুলে ধরছি দেহপট, নৃত্যের ছলনায়। অসংখ্য ক্ষুধিত চোখ চেটেপুটে নিচ্ছে সে দৃশ্য।

কিন্তু চারিদিকে শুধু সদ্যযুবাদের ভিড়, অস্থির দৃষ্টিতে কিশোরসুলভ উচ্ছ্বাস। কি করে এরা বুঝবে পরিণত নারীর মর্ম? আজ যে আমার চাই অভিজ্ঞ পুরুষস্পর্শ। একপাল হায়েনার মাঝে চোখদু'টো খুঁজে ফেরে সেই পুরুষসিংহকে।

বেশি সময় লাগল না। বারের পাশে পানপাত্রে চুমুক দিতে দিতে একদৃষ্টে দেখে চলেছে আমার শরীরী হিল্লোল। চোখে চোখ পড়তেই ছ্যাঁৎ করে উঠল বুকের ভিতরটা। ঈশ্বর একে অনেক যত্ন নিয়ে বানিয়েছেন। পেটানো দীর্ঘ চেহারা, চওড়া কাঁধ, টানটান ঋজু মেরুদণ্ডে নিয়মিত শরীরচর্চার আভাস। একমাথা অবাধ্য চুলের কয়েকগাছি কপালে এসে পড়লে অবহেলায় তাদের স্বস্থানে ফেরত পাঠাচ্ছে। পরনে সাধারণ জিন্স-টিশার্ট, তাও কি অতুলনীয়!

মন্ত্রমুগ্ধার মত পায়েপায়ে এসে বসি পাশের সিটটায়। বুকের মাঝে সহস্র মাদল বাজছে। বাইরে অবশ্য একইরকম উন্নতগ্রীবা মরালীর ভাব, যেন তাকে লক্ষ্যই করিনি, স্রেফ নাচতে নাচতে ক্লান্ত হয়ে একটু জিরিয়ে নিচ্ছি।

ওদিকে না তাকালেও নারীসুলভ অতিরিক্ত ইন্দ্রিয় জানাল সে আমাকেই দেখছে। অযথা নিজের চুলগুলোকে নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ি। দুইহাত তোলার অছিলায় উন্মুক্ত হয় নির্লোম মসৃণ বাহুমূল। বক্ষশোভা আরও একটু ঠেলে ওঠে স্যাটিনের পাতলা আস্তরণ ভেদ করে। এ ব্রহ্মাস্ত্র আজ অবধি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়নি।

'হাই, আয়্যাম রাফায়েল'

কানের খুব কাছে স্পষ্ট মন্দ্রস্বরে উচ্চারিত শব্দগুলো বোঝাল এখনও আমার অস্ত্র আগের মতই অব্যর্থ। অপাঙ্গে তাকালাম।

'আয়্যাম যাজ্ঞসেনী'

'হোয়্যার আর ইউ ফ্রম?'

'ইণ্ডিয়া। ইউ মাস্ট বি পর্তুগীজ'

'নো ডিয়ার, অ্যাম স্প্যানিশ' একটু থেমে যোগ করল, 'হোয়াট ডিড ইউ সে ইওর নেম ইজ?'

এমন খটোমটো নাম ইউরোপিয়ানদের বোধগম্য না হওয়ারই কথা, তাও চোখে কৌতুক ফুটিয়ে বললাম 'যাজ্ঞসেনী'

'স্যরি বাট ইটস টু ডিফিকাল্ট ফর মি টু প্রোনাউন্স, ক্যান আই জাস্ট কল ইউ জাগ্স?'

বলার ফাঁকে দৃষ্টি পলকে ছুঁয়ে গেছে উপচানো বুকেদের, ইঙ্গিতটা পরিষ্কার! অন্তঃকরণ একটু কেঁপে উঠল বুঝি, এ পুরুষ খেলতে জানে!

বাইরে যদিও ব্রীড়ার ভান করলাম। যেন কতই লজ্জা পেয়েছি! 'মে আই কল ইউ রাফা?' 'অফ কোর্স ইউ ক্যান সুইটি'

ওর গভীর দৃষ্টিতে কি এক সম্মোহনীশক্তি লুকিয়ে। তাকিয়ে থাকলেও অস্বস্তি, অথচ সেদিকেই বারে বারে অবাধ্য চোখ চলে যায়!

তৃষিত চাহনি পড়তে পেরেছে। নিশ্চিতভাবেই জানে সামনের নারী কি চায়। তাও আমায় সহজ হওয়ার সুযোগ দিতে পরিচয়পর্ব আরেকটু দীর্ঘায়িত হতে দিল। কথায় কথায় জানলাম রাফা আর্ট-কালেকশান বিজনেসে জড়িত। এখানে ব্যবসার কাজেই আসা, একজন পার্টনারের সঙ্গে।

নিজের কথাও বললাম ওকে, তবে রেখেঢেকে। যতটুকু না বললেই নয়।

রাত যত গভীর হচ্ছে, আমার মন পাল্লা দিয়ে উচাটন। শুধু বাক্যালাপেই অতিবাহিত হবে এ মধুযামিনী?

ভেতরের ছটফটানি ওর চোখ এড়ায়নি। বারটেণ্ডারের কাছ থেকে একটা স্কচ অন রকস এগিয়ে দিল। আঙুলে আঙুল ঠেকতেই যেন চারশোচল্লিশ ভোল্টের প্রবাহ। আলতোভাবে হাতটা রাখল স্কার্টের নীচের বেআব্রু উরুতে। পুরুষালি হাতের উষ্ণতা আমার অন্দরেও চারিয়ে যাচ্ছে। স্কচ আর কামোত্তেজনা মিলেমিশে বিবশ করে ফেলেছে। তারই মাঝে টের পেলাম নিটোল জঙ্ঘায় মৃদু চাপ। আমন্ত্রণের ইশারা?

পানপাত্র একচুমুকে নিঃশেষ করেছি, কান দিয়ে গরম হল্কা বেরোচ্ছে। তরল আগুন গলা বেয়ে নেমে ছড়িয়ে গেল শিরা-উপশিরায়, সারা শরীরের কোষে জ্বালছে কামনার বহ্নিশিখা। দেখতে দেখতে তারা দাবানল হয়ে গ্রাস করে নিল আমার সমগ্র সত্তা। ঘোলাটে চোখে ওর দিকে তাকালাম।

'আর ইউ অলরাইট?' আরও কাছে ঘনিয়ে এল, ওর নিঃশ্বাস পড়ছে আমার গালে।

অন্দরের ক্ষুধার্ত নারী পেলব বাহুতে পেঁচিয়ে ধরল ওর ঘাড়, ঠোঁট মিশিয়ে দিলাম রুক্ষ পুরুষালি ঠোঁটে। চকোরির মত শুষে নিচ্ছি। রাফা আমার কোমরে হাত রেখে কাছে টেনে নিয়েছে। চারপাশের উদ্দাম জনস্রোতকে ভুলে গিয়ে আছড়ে পড়লাম সবল পুরুষবক্ষে। আপনা থেকে নিষ্পিষ্ট হচ্ছি ওর আলিঙ্গনে। উপোসী নারীওষ্ঠে একের পর এক দংশনের স্বাদ। আঃ, কতকাল অপেক্ষায় রয়েছি কেবল এই মুহূর্তটির জন্য।

সঙ্গীতের মূর্ছনার মাঝে নীরব আমরা, কথারা বাঙ্ময় হয়ে ছুটে চলেছে অধর থেকে অধরে। নিপুণ দক্ষতায় ও চুমু খাচ্ছে আমায়, ঠিক যতটা আশ্লেষে একজন নারীর অন্তঃস্থল ভিজতে বাধ্য।

কতক্ষণে বিচ্ছিন্ন হলাম জানিনা। ঠোঁটে অপার্থিব অনুভূতি, সেইসঙ্গে প্যাণ্টির লেসে আর্দ্রভাব।

এখন আমি পুরোপুরি প্রস্তুত।

চোখে-চোখে কথা হতে যেটুকু সময়ের প্রয়োজন। সম্মতি পাওয়ামাত্র শক্তিশালী থাবায় আমাকে ছোঁ মেরে নিয়ে হাজির করেছে এলিভেটরের সামনে। আড়চোখে ফ্লোরনির্দেশক সূচক দেখে বুঝলাম আমাদের গন্তব্য রাফার রুম।

'ডিং', দরজাবন্ধের সংকেতমাত্রই আবারও ঘনসন্নিবদ্ধ আমরা। রুক্ষতর দংশনে পীড়িত হচ্ছে আমার অধর। প্রত্যুত্তরে কামড়ে দিতেই মুঠোয় ধরল স্তন। চটকাচ্ছে ধীরনিশ্চিত লয়ে। অন্যহাত ব্যস্ত ভারসাম্য রক্ষার ছলনায় আমার কটিদেশ অনুসন্ধানে। মিনিস্কার্টের অন্তরালে ঢুকে নিষ্ঠুরভাবে টিপে চলেছে তম্বুরাকৃতি নিতম্ব। জানি এসব হোটেলে সর্বত্র নিরাপত্তাক্যামেরার অতন্দ্র প্রহরা, তবু দুঃসাহসিকা হয়ে একপা দিয়ে বেষ্টন করলাম ওর কোমর। দু'হাতে খামচে ধরেছি রেশমের মত চুল। জবাবে অন্য পা-টাও তুলে নিল নিজের হাতে, সিংহবিক্রমে আমায় ঠেসে ধরেছে লিফটের দেওয়ালে। আধো-অনাবৃত পিঠে শীতল ধাতব স্পর্শে শিউরে উঠেছি। আচমকা অভিঘাতে একদিকের নুডলস্ট্র্যাপটা খসে পড়তে না পড়তেই সুযোগসন্ধানী শিকারী সেটাকে নামিয়ে দিল অনেকখানি। চোখ বোজা থাকা সত্ত্বেও বুঝলাম আমার ডানদিকের বুক প্রায় সম্পূর্ণ উন্মুক্ত।

'ডিং', ঐ অবস্থাতেই আমায় নিয়ে বেরিয়ে এল রাফা। দু'হাত জড়ানো ঘাড়ে, নগ্ন পুরুষ্টু থাই প্রবল আলিঙ্গনে পাক দিয়ে রেখেছে ওর কোমর। আবছায়াভাবে করিডরে অন্যদের অস্তিত্ব চোখে পড়ল। পরোয়া করলাম না।

আমি এখন পরিপূর্ণ অসতী।

Print this item

  Calling All Traders
Posted by: pichunter6984 - 1 hour ago - Forum: Pictures (Adult) - Replies (2)

hey im starting this thread for all traders from the old xossip

im sure most of us hv alot of pics but we def cn hv fun by comparing our finds

ping me on hangouts

pichunter6984@gmail.com

Print this item

  Find all her pics
Posted by: Samrocking321 - 2 hours ago - Forum: Requests - No Replies

More of her

https://imgadult.com/img-5c7182ab7cc63.html

Print this item

Heart অসীম তৃষ্ণা by পিনুরাম
Posted by: sorbobhuk - 2 hours ago - Forum: Bengali - No Replies

https://drive.google.com/file/d/1lO-HPpX...p=drivesdk

Print this item

  Handsome guy looking for Male top and bottom
Posted by: Aaksnaughty - 2 hours ago - Forum: Requests - No Replies

Handsome guy looking for Male top and bottom

Handsome guy 30 looking for hygiene, clean male top and bottom. If anyone interested please do send your pics front and back to aaksnaughty at gmail dot com.

Time passers please keep away

Print this item

  3D__;':Friends of fire [urdu/hindi in English font]
Posted by: Sk124 - 2 hours ago - Forum: Hindi Stories - No Replies

3D......................
....friends on fire

Hi dosto kiya hal hain.
Main ap ka dost sk hazir hoon ik new story ke sath
main xossip ka old writer tha lekin shayad kisi wajh se wo side block ho gai or serch karny par xossipy ki side mili to socha ke is story form me ik story start karo to kar di

har insan ki apni pasand hoti he or har writer ka apna amdaz hota he

mujh se ache writer is page par hain mera kisi se koe mukabla nahi bas jo hal he ap doston ki pesh e khimat he ager

koe dost is side ke rules see wakif he to bata de wese to ruls maine read kiye hain lekin insan se bhool chuk ho jati he

ye teen doston story he ager doston sath diya to 3D ki train b patdpar aa jae gî

dosto is ki shuewat aj raat se ho jàe gi

so comment for support...

3D means 3dost
friends on fire
category....... ALL IN ONE

Print this item

  Need this milf
Posted by: shaabir - 2 hours ago - Forum: Requests - Replies (1)

https://kidsgetmoney.co/share/abirsha

Print this item