Thread Rating:
  • 4 Vote(s) - 4.75 Average
  • 1
  • 2
  • 3
  • 4
  • 5
Adultery গুরুজীর মেনকা যোগিনী
#51
গুরুজীর ঘুমের অপেক্ষার সময়টা সবিতার সাথে কথা বলে কাটানোর চিন্তা করল রেবতী।  

"সবিতা শুনতে পাচ্ছ"  ইন্টারকমে প্রেস করে সবিতাকে ডাকল রেবতী

"হ্যাঁ বৌদি, কিছু লাগবে কি?" সবিতা তাৎক্ষনাৎ জবাব দিল

"না আজ আর কিছু লাগবে না, আজকের মত কাজ হয়ে গেছে"

"ও গুরুজী আজকের মত ছেড়ে দিল? " হাসতে হাসতে বলল সবিতা

সবিতার কথার ইঙ্গিত বুঝতে পারল রেবতী। ওর অস্বস্তি লাগল, ও এখন এধরণের কথা শুনতে বা মনে আনতে চাচ্ছিল না।

" হ্যাঁ আজকের মত পূজা শেষ " স্বাভাবিকভাবে জবাব দিল রেবতী

"তা বল না গুরুজী তোমাকে কিরকম দেখল? কিভাবে দেখল ?"

সবিতার এসব কথা রেবতী শুনতে চাচ্ছিল না, ও জানে এসব কথায় ওর চিন্তা ভাবনা শরীর শরীরের ক্ষুধার দিকে ধাবিত করবে।  

"তোমার কি শুধু এসব কথাই বলতে ইচ্ছে করে? গুরুজী সাধক ব্যক্তি, তাকে জড়িয়ে এভাবে কিভাবে বল?"

রেবতী যে রেগে গেছে সবিতার বুঝতে অসুবিধা হয় না, কিন্তু হঠাত বৌদির রেগে যাওয়ায় ও বেশ অবাক হয়। বৌদির সাথে এমনিতে তো ও বেশ ফ্রী, হাসি মজা দুষ্টুমি করে কিন্তু বৌদিকে রাগতে বা বিরক্ত হতে দেখে না কখনও।

"কি বৌদি কি এমন বললাম যে তুমি রেগে যাচ্ছ? কালকে যেমন ভয় পাচ্ছিলে যে ওমন পোশাকে গুরুজীর সামনে কিভাবে যাবে সে ভয় কেটেছে কিনা তাই জিজ্ঞেস করা।" সবিতা কথা ঘুরিয়ে বলল

"না রেগে যাচ্ছি না, কিন্তু তুমি খুবই উত্তেজক কথা বল" - মুখ ফসকে 'উত্তেজক' শব্দ বলে ফেলল রেবতী

"কি?! উত্তেজক!! ও তুমি আমার কথায় উত্তেজিত হয়ে যাচ্ছ, আর উত্তেজিত হয়ে উল্টাপাল্টা কিছু করার ভয়ে এমন বলছ " আবার হাসতে লাগল সবিতা

এ অবস্থায় সবিতার কথায় রেবতীর তো রাগ হবার কথা ছিল, কিন্তু ওর কেন যেন লজ্জা করতে লাগল।  

"তুমি শুধরাবে না কখনও " রেবতীর কন্ঠে লাজুকতা

"তুমিও তো শুধরাচ্ছ না, উত্তেজিত হয়ে যাও বারবার। কাল পূজার পোশাক পড়ে উত্তেজিত হলে, আজ একদিন গুরুজীর কাছে থেকে উত্তেজিত হচ্ছ, তা গুরুজী এমন কি দেখিয়ে দিল যে উত্তেজিত হচ্ছ ?" সবিতা নিজের রূপে ফিরে গেল

"ভাল হয়ে যাও বলছি। বাচ্চা মেয়ে নাক টিপলে দুধ বেড় হবে তুমি উত্তেজনার কি বোঝ?" রেবতী মুখে তো থামতে বলছে, কিন্তু সবিতাকে উসকাতে আর ওর সাথে এসব এরোটিক কথা বলতে খুব একটা খারাপ লাগছে না।

"দুধ তো বেড় হবেই তবে নাক টিপে না, অন্য কিছু টিপলে" বলেই হাসতে লাগল সবিতা

সবিতার ইঙ্গিত বুঝতে অসুবিধা হল না রেবতীর। নিজের মাইএর দিকে চোখ গেল ওর, লজ্জা করছিল ওর।  ওর আবার কালকের কথা মনে হল, আজ সকালের কথা মনে পড়ল, মনে পড়ল নিজের প্রতিজ্ঞার কথা।

"কি বৌদি দুধ বেড় করতে লেগে গেলে নাকি? এ অবস্থায় নিজে টিপলে কিছু হবে না, অন্য কারোর হাতের টেপন লাগবে" সবিতার আজ কি হয়েছে ওই জানে, এরোটিক কথার পসরা সাজিয়ে বসিয়েছে ও আজ। ওর কথা শুনে রেবতীর কান গরম হয়ে যাচ্ছে।

"সবিতা ঘুমাও আমিও শুয়ে পড়ব এখন" কথা শেষ করার তাড়া রেবতীর কন্ঠে, সবিতার সাথে এসব কথা বলতে তো ইচ্ছে করছিল, কিন্তু ও জানে ওর এখন থামার প্রয়োজন।  

"কি গুরুজীর সাথে?" সবিতার দুষ্টুমি চলতেই থাকল

"পূজা শেষ করে এসে খুব মারব কিন্তু তোমায়"

"আচ্ছা সে দেখা যাবে, যাও তোমার শোয়ার সময় হয়ে এল" - হাসতে হাসতে কথা শেষ করল সবিতা

রেবতী চেয়েছিল সবিতার সাথে কথা বলে সময় কাটিয়ে নেবে কিছুটা । সময় তো কাটলই তবে রেবতী কিছুটা উত্তেজিত হয়ে পড়েছে, যদিও রেবতী নিজেকে কনট্রোল করার জন্য সংকল্পবদ্ধ। গুরুজীর কামড়ায় উকি দিয়ে গুরুজীকে বিছানায় শুয়ে থাকতে দেখল রেবতী, হয়তো গুরুজী ঘুমিয়েছেন, তাহলে এখন উনার বস্ত্র খুলতে যাবার সময় হয়েছে । বস্ত্র খুলে ফেলার ভাবনা আসতেই আবারও লজ্জা ভাব ফিরে এল। পূজার বিধি হোক তবু এক পরপুরুষকে ন্যাংটো করা বলে কথা। কিছুটা লজ্জা আর ধুকধুক করতে থাকা মন নিয়ে গুরুজীর বস্ত্রহরণের অভিপ্রায় নিয়ে গুরুজীর কামড়ার দিকে পা বাড়াল ...
Reply




Users browsing this thread: 1 Guest(s)